Home / আলোকিত ব্যক্তিত্ব / প্রকৌশলী শাহ আলম

প্রকৌশলী শাহ আলম

সংক্ষিপ্ত পরিচিতিঃ
প্রকৌশলী মোহাম্মদ শাহ আলম চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়া উপজেলার চুনতি ইউনিয়নের পশ্চিম চুনতি মেম্বার বাড়িতে ১৯৫৯ সালের ১৫ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন। পিতা মোহাম্মদ শামসুল ইসলাম এবং মাতা মোছাম্মৎ মোস্তাফা খাতুন।

প্রকৌশলী শাহ আলম এর সহধর্মীনি মিসেস হাসিনা সালমা। উনার শ্বশুর লোহাগাড়ার আরেক কৃতি সন্তান  বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মরহুম প্রফেসর নাজিম উদ্দীন।
প্রকৌশলী শাহ আলম এবং হাসিনা সালমা বর্তমানে ৪ সন্তানের জনক এবং জননী। বড় ছেলে শাহরিয়ার হাসনাইন নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি থেকে ফাইন্যান্স এ স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। এখন তিনি ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো(BAT) এর অর্থ বিভাগে কর্মরত অবস্থায় আছেন।
দ্বিতীয় ছেলে শাহওয়াত হাসনাইন রাজশাহী ইউনিভার্সিটি অফ ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি’র ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার বিভাগের ১ম বর্ষে অধ্যয়নরত আছেন।
প্রথমা কন্যা শাহরিন হাসনাত বীরশ্রেষ্ঠ নুর মোহাম্মদ কলেজ ঢাকা এর দশম শ্রেণির ছাত্রী।
তৃতীয় ছেলে হাফেজ সালসাবিল হাসনাইন উত্তরার তানজিমুল উম্মাহ্ মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণির ছাত্র।

শিক্ষা জীবনঃ
তিনি নিজ গ্রাম চুনতিতে তাঁর প্রাথমিক শিক্ষা সম্পন্ন করেন। ১৯৬৬ সালে তিনি লোহাগাড়ার চুনতি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় শ্রণিতে ভর্তি হন। ১৯৭৫ সালে চুনতি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পাশ করেন। ১৯৭৭ সালে তিনি চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন।

তিনি ১৯৭৮ সালে চট্টগ্রাম ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে(বর্তমানে চট্টগ্রাম ইউনিভার্সিটি অফ ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি) ভর্তি হন। সেখান থেকে তিনি ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করেন এবং ১ম শ্রেণি ৩য়(First class third) স্থান অধিকার করেন।

কর্ম জীবনঃ
১৯৮৪ সালে তিনি খুলনা ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ(বর্তমানে খুলনা ইউনিভার্সিটি অফ ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলোজি) এর ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ারিং(EEE) বিভাগের লেকচারার হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। শিক্ষাজীবনে তিনি প্রখর মেধাবী থাকার কারণেই মূলত তিনি অধ্যাপনা পেশা শুরু করেন। দীর্ঘদিন তিনি অধ্যাপনা করার পর তিনি অন্য পেশার দিকে মনোনিবেশ হন।

তিনি ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড এর সহকারী প্রকৌশলী হিসেবে যোগদান করেন। এরপর বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস(বিসিএস) এর টেলিকম ক্যাডার হন এবং ২০০৫ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ টেলিগ্রাফ এন্ড টেলিফোন বোর্ডের একজন দক্ষ প্রকৌশলী হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। এরপর তিনি ২০০৫ সালে টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড এর মহাব্যবস্থাপক হিসেবে যোগ দেন। ২০১৩ সালের জুলাই থেকে ২০১৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ টেলি কমিউনিকেশন লিমিটেড(BTCL) এর পরিচালকের গুরুদায়িত্ব পালন করেন। এরপর ২০১৪ সালের জানুয়ারি মাসে তিনি আবারো টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড এর মহাব্যবস্থাপক হিসেবে যোগ দেন এবং এখনো তিনি এই গুরুত্বপূর্ণ পদে একজন দক্ষ প্রকৌশলীর দায়িত্ব পালন করছেন। ২০০৬ সালে তিনি আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম থেকে মার্কেটিং এ জিপিএ ৩.৮৭(জিপিএ ৪ এর মধ্যে) নিয়ে এমবিএ শেষ করেন। তিনি পেশাগত কারণে সরকারীভাবে ভারত, মালদ্বীপ, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, জার্মানি, ব্রাজিল, চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ব্যাংকক, জাপান, কাতার, হংকং এবং ম্যাকাও সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ভ্রমন করেন। এবং তিনি পবিত্র হজ্ব পালনের জন্য সৌদি আরবও ভ্রমণ করেন।

About Tamzid20

Check Also

মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের কবি নওয়াজিশ খান

নওয়াজিশ খানের রোমান্সমূলক প্রেমকাহিনী হিসেবে গুলে বকাওলী যে তখন খুবই জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল এসব দৃষ্টান্তে …

বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী রফিকুল ইসলাম সিদ্দিকী

একজন সাদা মনের মানুষ ও সদা হাস্যোজ্জ্বল ব্যক্তিত্ব ছিলেন রফিকুল ইসলাম সিদ্দিকী। দেশে যে কয়েকজন …

জনাব ইসলাম খাঁন স্মরণে

জনাব ইসলাম খাঁন স্মরণেঃ চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়া উপজেলার চুনতি ইউনিয়নের প্রবীণ মুরব্বী বিশিষ্ট সমাজসেবক, দানবীর, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *