Home / গল্প / যৌতুক ও সমাজঃ এন.আই.পারভেজ

যৌতুক ও সমাজঃ এন.আই.পারভেজ

সকালে ঘুম থেকে উঠে প্রাতরাশ সারাটাই আরিফের কাজ। আজও তার ব্যাতিক্রম নয়। ব্যাতিক্রম শুধু তার পরিবেশটা। অনেক দিন পর গতরাতে গ্রামে এসেছে। প্রায় তিন মাস পর বলা যায়। পড়ে প্রাইভেট ভার্সিটিতে ইঞ্জিনিয়ারিং নামক প্যারা সাবজেক্টে। সব সময় পড়ার ভিতরে থাকে। সে দিনই পরীক্ষা শেষ করে আসল। আবার চলে যাবে পরীক্ষার টানে। এ জন্য এক নাড়ি ছেড়া টান তার।  তবু চেষ্টায় ব্রত নতুন কিছু দেওয়ার।  আরিফ সকালে হাটবে স্হির করেছে আজ। একা একা হাটবে। হাটবে অনেকদুর।  কনকনে ঠান্ডায় খালি পায়ে,শিশির মাখানো ঘাসের উপর পা দুটি চালিয়ে যাচ্ছে অবিরত আরিফ। গ্রাম তার ভালো লাগে। ভালো লাগে তার শৈশব। ভালো লাগে গ্রামের শস্য ক্ষেত গুলি দেখতে। আজো তার ব্যাতিক্রম নয়। হাটতে হাটতে হঠাৎ ডাক শুনে…
নাতি..ও নাতি..
হত্তে আইস সদে…
আরিফ দেখে তার দাদার বন্ধু.. তাকেও দাদা ডাকে।
দাদা আই গত হালিয়া  আইসসিদি। অনে ভালা আছন না??
-কি ভালা আর! তোয়ার ফ’রু(ফুফি) বিয়া ঠিক গরগি। এগিন লইয়েরে টেনশনত আছি।
-দাদা হডে ঠিক গরগনদ্যে?
-কলাউজান। পোয়া বিদেশত থাহে। বাড়ি ঘর বিয়াগ ঠিক আছে। পোয়া গরর তিন নাম্বারগোয়া। বেশি নয় ৫০০ মানুষেরে ভাত হাবা পরিবো। আর সমাজত বেয়াগ যেভাবে দে এভাবে সম্মান গরা পরিবু।
-দাদা পোয়া বিদেশত কি গরে? আর কামিন নামা হ ট্যায়া??
-নাতি পোয়া খুব গম। বিদেশত থাহে। পরশু সোমবারে বিয়া। তুরাতোন থাহা পরিবো। হামিন নামা  আট লাখ ট্যা  দরগ্যে। ২ভরি সোনা নগদ দিবো আর ৫০আজার ট্যায়ার হর-চোর(কাপড়-চোপড়) দিবো।
-আইত্যু দাদা হালিয়া যাইয়্যুম মই। তো এদুগগ্যুন ট্যায়া হড়ে পেবান?
-বারির পিছনে জাগা(জমি) আছেদে ইয়ান বেচি দিয়ি। ট্যায়া  কিছু হর্জ গরগ্যি। অবাজি সমাজর বিয়াগগ্যুন ডরইল্যা দেয়া ন পরিবু না। নইলে হইবু তো।
-ঠিক আছে দাদা দুয়া হরগইন।

আরিফ হেটে যাচ্ছে, আর তার মাথায় ঘুরতেছে তার দাদার কথা গুলি। মাথায় ঘুরতেছে সমাজের অদ্ভুদ নিয়ম গুলি।
আর আমরা কেমন পুরুষ যারা যৌতুক নিয়ে বিয়ে করি। সমাজে কি শিক্ষিত রাই মুর্খ নাকি অশিক্ষিতরাই??
আরিফ ভাবে ধর্ম কি তাই বলে?

প্রত্যেক ধর্মে যৌতুক হারাম। তবু কেন যৌতুক চায়?? যদি মেয়েরা যৌতুকের পণ্য হয় তাহলে মা,বোন কেমনে হয়?
ধরলাম ওটা হিন্দুদের প্রথা থেকে আসছে। তাহলে প্রশ্ন হল হিন্দুরা মা কে পুজা করে কেন? কেন মাকে ভগবানের সাথে তুলনা করে??

আরিফ  আরো ভাবে আমরা শিক্ষিতরা কেমন? কামিননামার টাকা সব কি দিয়ে দিই?? অথচ আজ মেয়েরাই কেন পণ্য? তা কি ব্লেকমেইল করা নয়? অথচ কতিপয় অনেকে বলে ক্ষমা চেয়ে নিতে। কেন এই ব্ল্যাকমেইল??
আজ আরিফের মাথা কাজ করে না। শুধু মনে মনে ভাবে নারীরা আজ পণ্য কেন।

যেখানে হযরত মুহাম্মদ সঃ বলেছেন-
যার একটা মেয়ে সন্তান জন্মগ্রহণ করেছে। তাকে শুশিক্ষিত করে সুপাত্রে দান করলো তার জন্য একটি জান্নাত। যার দুটি মেয়ে সন্তান  জন্মগ্রহণ করেছে তাকে সুশিক্ষিত করে সুপাত্রে দান করলো তার জন্য দুটি জান্নাত।
তার একাধিকের জন্য একই নিয়ম।
(সহীহ বুখারী)

তবু কেন এই অনিয়ম?  যেখানে প্রত্যেক ধর্মে নারীকে সম্মান করেছে আকাশচুম্বী তবু কেন এ নির্যাতন!! আর সমাজ কি সবাইকে ফকির করার আয়েশে বসে আছে। আজ সমাজ টাই খারাপের দিকে ধাবিত করেছে। কেননা তারাই বলে সমাজের সাথে খাপ খেয়ে চলতে।
আরিফ ভাবে আমার সামর্থ্য নাই তবু কেন সমাজের ধনীর মত আমাকে চলতে হবে??
কেন আমি যৌতুক দিবো/চাইবো??
আজ সমাজের প্রতিটি  শিক্ষিতরাই চুপ। তারাই তো সমাজ ধ্বংস করছে অবিরত। তারা আজ সমাজের জন্য এক একজন কার্বন মনোক্সাইড।
যারা প্রতিটি রক্তে প্রবেশ করেছে নিরবে। ক্ষতি করছে পুরো সমাজ। ক্ষতি করছে সবার। প্রতিযোগিতায় নামিয়ে দিচ্ছে সবাইকে পাপের দিকে। আজ প্রতিটি শিক্ষিত রাই মুর্খের চেয়ে অধম।
তারা আজ অধমের চেয়ে অধম।
আরিফ ভাবে এভাবে কি সমাজ পরিবর্তন হবে? পরিবর্তন শুধু নিজের। পরিবর্তন শুধু আমাদের। আমাদের পরিবর্তনই পরিবর্তন করতে পারবে সমাজ।
আরিফ শুধু হেটে যাচ্ছে অবিরত… তার পথ যেন শেষ হবার নয়…


নুরুল ইসলাম পারভেজ
ছাত্রঃ ইলেকট্রিক্যাল এ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম।
সাতগড়,চুনতি, লোহাগাড়া,চট্টগ্রাম

About Tamzid20

Check Also

রহস্যগল্প “খবিস” -মিজান উদ্দিন খান বাবু। 

লোকটাকে প্রথম দেখাতেই আমার অপছন্দ হয়েছিলো।মোঙ্গলিয়ান চেহারাটায় কোথায় যেন একটা অশুভ ভাব আছে। অসম্ভব ধূর্ত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *