Home / উদ্যোক্তাদের নিয়ে / স্বল্প মূলধনে বলপেন উৎপাদন ব্যবসার গাইডলাইন

স্বল্প মূলধনে বলপেন উৎপাদন ব্যবসার গাইডলাইন

“শিল্প গড়ে সবার ঘর, দেশকে করবো স্বনিভর”

দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে বর্তমান সময়ে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের গুরুত্ব অপরিসীম। তেমনি একটি স্বল্প বিনিয়োগের ব্যবসা হচ্ছে বলপেন উৎপাদন ব্যবসা। বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে শিক্ষার হার দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই দেশে শিক্ষা উপকরণের চাহিদাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। শিক্ষা উপকরণের মৌলিক একটি উপকরণ হচ্ছে বলপেন। বলপেন ছাড়া জ্ঞানার্জন সম্ভব না। তাই বলপেন ব্যবসা একটি লাভজনক ব্যবসা। – লিখেছেনঃ এম. তামজীদ হোসাইন


স্বল্প পুঁজিতে মাত্র ২ জন কর্মচারী নিয়ে ভালো মানের বলপেন উৎপাদনের ব্যবসা শুরু করা যায়। এই ব্যবসায়ের জন্য লাগে না আলাদা কোনো ঘর। নিজের বাড়ির একটা রুমেই চাইলে পারিবারিকভাবে এই ব্যবসা শুরু করা যায়। যার ফলে এই ব্যবসা করতে আলাদা ঘর ভাড়া গুনতে হয় না। শ্রমিকেরও বাড়তি ঝামেলা ছাড়া পারিবারিকভাবে শারীরিক তেমন একটা পরিশ্রম ছাড়া বলপেন কারখানা করা যেতে পারে।
বলপেন তৈরির করতে প্রাথমিকভাবে কি কি মেশিন লাগবে?
বলপেন তৈরির কারখানা গড়তে প্রাথমিকভাবে ৩ ধরণের মেশিন লাগে। এগুলো অবশ্যই ম্যানুয়াল মেশিন। সেমি অটোমেটিক এই তিনটি মেশিনের দাম পড়বে ২৫-৩০ হাজার টাকা।

মেশিনের নাম যথাক্রমে- ১। Ink Filling Machine; ২। Adapter Machine; ৩। Tip Fitting Machine.

পরবর্তীতে ব্যবসার পরিসর বৃদ্ধি পেলে অতিরিক্ত আরো দুটি মেশিন কিনলে লাভের হার আরো বৃদ্ধি পাবে। এই মেশিনগুলোর নাম যথাক্রমে- ১। Name printing machine ২। Centrifuge Machine.
তবে শুরুতে তিনটি মেশিন দিয়েও কাজ চালানো যায়।

কাঁচামালঃ বলপেন তৈরি করতে সাধারণত কয়েক ধরণের কাঁচামাল প্রয়োজন। বলপেনের কাঁচামাল সম্পর্কে বিস্তারিত নিম্নে বর্ণনা করা হলো-
ক) বলপেনের বডিঃ বলপেনের বডি তৈরি করা একটু ব্যয়বহুল। তাই রেডিমেড বডি সংগ্রহ করা যেতে পারে।
খ) বলপেনের কেপ বা ঢাকনাঃ এটি রেডিমেড পাওয়া যায়।
গ) বলপেনের Adopter: এটিও রেডিমেড পাওয়া যায়।
ঙ) বলপেনের টিপঃ টিপও রেডিমেড পাওয়া যায়।
চ) বলপেনের কালিঃ বলপেনের কালি দেশেই পাওয়া যায়।
ছ) কলমের প্যাকেটঃ দেশেই এগুলো পাওয়া যায়।

বিনিয়োগঃ
১। স্থায়ী বিনিয়োগঃ মেশিন বাবদ ৩০,০০০/-
২। কাঁচামাল বাবদঃ ৩০,০০০/-

আয়-ব্যয় খরচঃ
বলপেন তৈরিতে ব্যয় খরচঃ প্রতি ১ বুরুজ হিসাবে
বলপেনের বডিঃ ১২৫-১৩০ টাকা
বলপেনের কেপঃ ৩০ টাকা
বলপেনের এডেপ্টারঃ ৭ টাকা
বলপেনের টিপঃ ৪৫ টাকা
বলপেনের কালিঃ ৪০ টাকা
প্যাকেটঃ ১০ টাকা
১ বুরুজে সর্বমোট খরচ হয় ২৬২ টাকা। ১ বুরুজ=১৪৪ টি। অর্থাৎ প্রতিটি কলম তৈরি হতে খরচ হয় ১.৮১ টাকা। কর্মচারী+বিদ্যুৎ খরচ+যাতায়াত খরচ বাবদ আরো ৩০ পয়সা অর্থাৎ একটি কলম দোকান পর্যন্ত পৌছাতে খরচ পড়ে ২.১০ টাকা পর্যন্ত। যেখানে মজুরি+যাতায়াত খরচ সহ ধরা হয়েছে।

আয় ও লাভঃ
উপরে যে কলমের হিসাব দেওয়া হয়েছে সেটা হচ্ছে বাজারে Matador Hi-School যে কলমটা পাওয়া যায় সেই কোয়ালিটির কলমের উৎপাদনমূল্য ধরা হয়েছে। এই কলমটি দেশের যেকোনো প্রান্থে দোকানদারের কাছে অনায়াসে প্রতি পিস ৩.১০ টাকা দরে বিক্রি করা যেতে পারে। অর্থাৎ প্রতি কলমে লাভ থাকবে ১ টাকা করে।

দৈনিক ২ জন কর্মচারী রেখে ২০০০-৩০০০ কলম উৎপাদন করা সম্ভব। অর্থাৎ বলপেন উৎপাদন করে তা বাজারে বিক্রি করলে দৈনিক ২০০০-৩০০০ টাকা লাভ করা সম্ভব। যা মাস শেষে দাঁড়ায় একটি বিশাল অংক। আমাদের সমাজে বেকারত্ব দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। সবাই চাকুরির আশায় বেকারত্বকে জীবনের একটি অংশ হিসেবে বেছে নিচ্ছে। অথচ একটু পরিশ্রম করলেই জীবনের মোড় ঘুরে যাবে। ইউনিয়ন পরিষদ থেকে একটা ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এই ব্যবসা করতে গেলে কোনো প্রশিক্ষণের প্রয়োজন হয় না। সামান্য যে প্রশিক্ষণ তা মেশিন কেনার সময় বিক্রেতা শিখিয়ে দিবে।

যেখানে মেশিন পাওয়া যাবেঃ
এমএস মেশিনারি
মোবাইল নংঃ ০১৯৩৩৪৫৭৭১০, ০১৭৯৭৪৯৮১৬০

www.selfaid4.org
উদ্যোক্তা: মেশিন, প্রশিক্ষণ, উপকরন ও কারিগরী সহায়তার জন্য যোগাযোগ করুন।
শ’তরূপা, কাজির দেউরী সি.ডি.এ মার্কেট (৩য়তলা) চট্টগ্রাম। (কাজীর দেউরী কাঁচা বাজারের পুরনো বিল্ডিং )
মোবাইল- 01713484311

এবিসি ইঞ্জিনিয়ারিং (মি) লিমিটেড
রাজেন্দ্রপুর বাজার (অহিদ সুপার আন্ডারগ্রাউন্ড মার্কেট)
গাজীপুর-১৭৪১, ঢাকা
+8801977886660, 01758631813

About Tamzid20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *